বৃটেনে করোনার প্রভাব: ১০৪ জনের মৃত্যু অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ ঘোষণা, হচ্ছে না জিসিএসই এবং এ লেভেল পরীক্ষা

নিউজ

।। সুরমা প্রতিবেদন ।।
লণ্ডন, ১৮ মার্চ – প্রলয়ঙ্কারী করোনার ভয়াবহ বিস্তার রোধে বৃটেনের সকল স্কুল বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। ১৮ মার্চ, বুধবারের ১০ নাম্বার ডাইনিং স্ট্রিটে অনুষ্ঠিত সংবাদ সম্মেলনে ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন এই ঘোষণা প্রদান করেন। ২০ মার্চ, শুক্রবার থেকে ব্রিটেনের সকল স্কুল পরবর্তি নির্দেশ না দেয়া পর্যন্ত বন্ধ থাকার ঘোষনা দেন প্রধানমন্ত্রী।স্কুল বন্ধের পাশাপাশি আগামী মে ও জুন মাসে অনুষ্ঠিতব্য নির্ধারিত পরীক্ষাগুলোও স্থগিত বলে ঘোষণা দেন ঘোষণা প্রদান করা হয়। প্রধানমন্ত্রী বলেন, বছর শেষে প্রত্যেক শিক্ষার্থীরই তাদের ফলাফল পাবার অধিকার রয়েছে, কিন্তু কীভাবে তারা তা পাবে সেটি পরিষ্কার করে বলা হয়নি। সংবাদ সম্মেলনে প্রধানমন্ত্রীর সাথে প্রধান সায়েন্স এডভাইজার ও প্রধান ক্লিনিক্যাল অফিসার উপস্থিত ছিলেন এবং সাংবাদিকদের বিভিন্ন প্রশ্নের জবাব দেন। প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, বাচ্চাদের বৃদ্ধ দাদা-দাদি বা বয়স্ক আত্মীয়দের সাথে ছেড়ে দেওয়া উচিত নয় যারা বিশেষভাবে করোনভাইরাস থেকে ঝুঁকির মধ্যে পড়তে পারে।তিনি অভিভাবক ও স্কুলের শিক্ষক ও স্টাফদের উদ্দেশ্যে বলেন, আমি তাদের আত্মত্যাগের জন্য পরিবারকে ধন্যবাদ জানাতে চাই। একই সাথে আমি শিক্ষকদের এবং সমস্ত সমর্থনকারী কর্মীদের ধন্যবাদ জানাতে চাই যারা স্কুলগুলি চালিয়ে যায়।এবছরের পরীক্ষা বন্ধ ঘোষণায় খুশি নন অনেক শিক্ষার্থী। কারন অনেকে মনে করছে, পরীক্ষা হলে হয়তো তারা ভালো গ্রেড নিয়ে পাশ করতে পারতো। পরীক্ষা না হওয়ায় ঘোষণায় এখনো পরিষ্কার নয়, তাদের ফলাফল কীভাবে নির্ধারণ হবে। তবে প্রধানমন্ত্রী অচিরেই বিস্তারিত জানা যাবে বলে উল্লেখ করেছেন।উল্লেখ্য, গতকাল মঙ্গলবার পর্যন্ত বৃটেনে করোনা মৃতের সংখ্যা ছিলো ৭১। গত ২৪ ঘন্টায় তা বেড়ে ১০৪ জনে দাঁড়িয়েছে। এর মধ্যে ৯৯ জনই ইংল্যান্ডের। আর পরীক্ষার পর ২,৬২৬ জনের মধ্যে করোনার লক্ষণ তথা পজিটিভ পাওয়া গেছে। এদিকে, বিশ্বজুড়ে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ২ লক্ষ ছাড়িয়ে গেছে এবং মৃত্যু হয়েছে প্রায় ৮ হাজার। তবে করোনার সূতিকাগার চীনে আক্রান্ত ও মৃতের সংখ্যা ক্রমশ কমছে।