সম্পাদকীয়

বিচারপতি তোমার বিচার …

এ সপ্তাহরে সম্পাদকীয় ।। ইস্যু ২২৫৫

একজন মহা সমালোচিত বিচারপতি ও দুর্নীতির অভিযোগে আন্তর্জাতিক যুদ্ধাপরাধ ট্রাইব্যুনাল থেকে বরখাস্তকৃত একজন ব্যারিস্টারের সমন্বয়ে তথাকথিত গণ কমিশন ১১৬ জন আলেমের বিরুদ্ধে দুদকে যে রিপোর্ট দিয়েছে এটা নানা দিক থেকে তাৎপর্যপূর্ণ। প্রতিষ্ঠান হিসেবে দুদক ইতিমধ্যে  সরকারের রাজনৈতিক অভিলাষ চরিতার্থ করার বিশ্বস্ত প্রতিষ্ঠান হিসেবে কুখ্যাতি অর্জন করেছে।  কথিত দুর্নীতিবাজদের হাত থেকে তথাকথিত কমিশনের রিপোর্ট গ্রহণ করে দুদক তার সেই পরিচয়কে যথার্থতা দিয়েছে। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী এই রিপোর্ট প্রত্যাখ্যান করলেও দুদকের সাহস হয়নি এ ব্যাপারে কিছু বলার! ১১৬ জন আলেম ওলামা জনসাধারণের মধ্যে অত্যন্ত জনপ্রিয় তাদের বাগ্মিতা এবং স্পষ্ট ধর্মীয় আলাপচারিতার কারণে। এক হাজার মাদ্রাসাকেও ওই রিপোর্টে টার্গেট করা হয়েছে। যদিও বেশির ভাগ অভিযোগ তথ্যপ্রমাণ বিহীন, কেবলমাত্র অনুমান নির্ভর।

বাংলাদেশে আইন-আদালত, বিচার বিভাগ এবং সমস্ত নির্বাহি বিভাগ থাকা সত্ত্বেও বেসরকারিভাবে এই ধরনের কমিশন গঠন করে তদন্ত করার এক্তিয়ার এই বিতর্কিত মানুষগুলো কোথায় পেলেন? জনস্বার্থ সম্পৃক্ত জাতীয় এই বিষয়গুলো আইনগতভাবে দেখতে পারে একমাত্র সরকার। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী কথিত ওই রিপোর্ট’র  পিছনের লোকগুলোর কর্তৃত্ব নিয়ে প্রশ্ন তুললেও এই বিতর্কিত লোকগুলোর বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা গ্রহণ না করায় প্রশ্ন দেখা দিয়েছে কেন সরকার এই ক্ষেত্রে তার নির্বাহী কর্তৃত্ব প্রয়োগ করছেন না? একটি দেশের সরকার আইন-শৃঙ্খলা বজায় রাখার পাশাপাশি সকল ধরনের বিশৃঙ্খলা এবং নৈরাজ্যের মোকাবেলা ও দমনে কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণ করবে এটাই স্বাভাবিক । অন্য অনেক ক্ষেত্রে সরকার তাঁর এইসব কর্তৃত্ব দরকারের চেয়ে অতিরিক্ত ব্যবহার করলেও এই ক্ষেত্রে সরকারের নীরবতা এবং দ্বিমুখী নীতি অসংখ্য প্রশ্নের জবাব প্রশ্নের জন্ম দিয়েছে। এ ব্যাপারে সরকার তার অবস্থান অচিরেই পরিষ্কার করবে বলে আমরা আশা করি।

সম্পরকিত প্রবন্ধ

Back to top button
Close
Close