নিউজ

নূর খান লিটন’র যুক্তরাষ্ট্রের মানবাধিকার ডিফেন্ডার অ্যাওয়ার্ড লাভ

সুরমা ডেস্ক। লন্ডন, ৬ফেব্রুয়ারী।  যুক্তরাষ্ট্রের স্টেট ডিপার্টমেন্ট ফেব্রুয়ারীর প্রথম দিনে বার্ষিক গ্লোবাল হিউম্যান রাইটস ডিফেন্ডার অ্যাওয়ার্ডের বিজয়ীদের নাম ঘোষণা করেছে। তালিকার শীর্ষে রয়েছেন বাংলাদেশের আইন ও সালিশ কেন্দ্রের নির্বাহী প্রধান নূর খান লিটন। বিশ্বের বিভিন্ন দেশের দশ জনকে বিশ্ব মানবাধিকারের ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ অবদানের জন্য মনোনীত করা হয়েছে। এব্যাপারে স্টেট ডিপার্টমেন্টের এক বিবৃতিতে বলা হয়েছে, মানবাধিকার রক্ষাকারীদের সুরক্ষা এবং সমর্থন করা মার্কিন পররাষ্ট্র নীতির একটি প্রধান অগ্রাধিকার। কারণ তারা গণতন্ত্র, ন্যায় বিচার, একটি প্রাণবন্ত নাগরিক সমাজ, অর্থনৈতিক সমৃদ্ধি এবং পরিবেশগত স্থায়িত্বের অবিচ্ছেদ্য অঙ্গ।

বাংলাদেশের বিশিষ্ট মানবাধিকার ব্যক্তিত্ব মোহাম্মদ নুর খান (লিটন)’এর মনোনয়নের কারণ হিসেবে বলা হয়েছে, বিগত তিন দশকে জনাব খান বাংলাদেশের দুটি বিখ্যাত অভ্যন্তরীণ অধিকার সংস্থার নেতৃত্ব দিয়েছেন এবং মানবাধিকার লঙ্ঘন নথিভুক্ত করতে এবং বাংলাদেশে জবাবদিহিতা প্রচার করতে আন্তর্জাতিক সংস্থাগুলির সাথে অংশীদারিত্ব করেছেন। তার সময়মত হস্তক্ষেপ, বলপূর্বক গুমের শিকার ব্যক্তিদের পরিবারের পক্ষে কার্যক্রম এবং দেশের সক্রিয় সুশীল সমাজ নেটওয়ার্কের মধ্যে নেতৃত্ব এবং রাজনৈতিকভাবে উদ্দেশ্যপ্রণোদিত অভিযোগের শিকার নির্দোষদের অনেকের অধিকার রক্ষায় বিশেষ ভূমিকা রেখেছেন।

গ্লোবাল হিউম্যান রাইটস ডিফেন্ডার অ্যাওয়ার্ডের জন্য এবছরে (২০২৩) বিজয়ীদের অন্যান্যের মধ্যে রয়েছেন,  ইলাইজ ডি সুজা ফারিয়াস (ব্রাজিল), চিম শিথার (কম্বোডিয়া), নিনো লোমজারিয়া এবং তার টীম (জর্জিয়া), রোজা মেলানিয়া (হণ্ডুরাস), নাসরিন সতুদেহ (ইরান), ডিং জিয়াজি (চীন), একু ডেভিড জোসেফ(টোগো), বাশদার হাসান ও তার টীম (ইরাক) ও মোহাম্মদ এলি এল হার (মৌরিতানিয়া)। 

যুক্তরাষ্ট্র এবছর মানবাধিকারের সার্বজনীন ঘোষণার ৭৫তম বার্ষিকী এবং মানবাধিকার রক্ষা কারীদের বিষয়ে জাতিসংঘের ঘোষণার ২৫তম বার্ষিকী উভয়ই উদযাপন করছে। বিবৃতিতে বলা হয়েছে, যুক্তরাষ্ট্র এই পুরস্কারপ্রাপ্তদের সম্মান জানাতে পেরে আনন্দিত – বিশ্বজুড়ে দশজন ব্যক্তি যারা নেতৃত্ব এবং সাহস প্রদর্শন করেছেন। এছাড়া মানবাধিকার এবং মৌলিক স্বাধীনতার প্রচার এবং রক্ষা; সরকার এবং বেসরকারী পর্যায়ে মানবাধিকার লঙ্ঘন প্রতিরোধ এবং প্রকাশ করা; এবং পরিবেশ রক্ষা, শাসন ব্যবস্থার উন্নতি এবং দায়বদ্ধতা সুরক্ষিত করতে এবং মানবাধিকার লঙ্ঘনকারীদের দায়মুক্তির অবসানের জন্য তাদের বিশেষ পদক্ষেপ অত্যন্ত তাৎপর্যপূর্ণ। যুক্তরাষ্ট্রের এই পুরস্কার গণতন্ত্র, মানবাধিকার এবং শ্রম ব্যুরো দ্বারা নির্ধারিত হয় বলে বিবৃতিতে উল্লেখ করা হয়।

Sheikhsbay

Related Articles

Back to top button
Close
Close