নিউজ

করোনা ও ক্ষুধার্ত মানুষের আহাজারি

সুরমা প্রতিবেদন, ঢাকা-১৫জুলাই। করোনা মোকাবেলায় বাংলাদেশ এখন কঠোর লকডাউনে। একসপ্তাহের ঈদের বিরতির আগে পর ক্যামন আছেন শহরের দিনমজুর কর্মজীবী মানুষ? বাস্তুহারা মানুষ, খুদে কর্মজীবী, ভিখারি আর ছিন্নমূল মানুষের কথা ভাবার সময় কি কারো আছে? কাজ নেই, খাবার নেই। ঢাকায় ক্ষুধার্ত মানুষের এই আহাজারি শুনে হৃদয়বান মানুষেরা এগিয়ে আসার ভালো  কিছু খবর আমাদের হাতে এসেছে।  রাজধানী ঢাকায় ছিন্নমূল মানুষের মুখে খাবার তুলে দিতে উদ্যোগী হন দুই সফল তরুণ উদ্যোক্তার প্রতিষ্ঠান লুবমান গ্রূপের দুই প্রধান নাজমুল খান ও মুহাম্মদ জুনায়েদ। আর সমাজসেবী-সাংবাদিক জাকির হোসেনের কর্ম তৎপরতায় গত কয়েকদিনে ঢাকা স্টেডিয়াম ও পল্টন এলাকায় তিন শতাধিক  ক্ষুধার্ত মানুষ তাদের ক্ষুধার যন্ত্রণা থেকে মুক্তি পান। এই দুঃসময়ে হৃদয়বান মানুষগুলো তাদের কাছে সাক্ষাৎ দেবদূত হয়ে আসেন। সাংবাদিক জাকির হোসেন সাপ্তাহিক সুরমাকে বলেন, এমন অমানবিক অবস্থা আগে কখনো দেখিনি। মহামারী আমাদের জীবনে দেখিনি, কিন্তু এবার ভয়াবহতা দেখলাম। একদিকে সারিসারি মৃত্যু অন্যদিকে বেঁচে থাকা গরীব ও ক্ষুধার্ত  মানুষের আহাজারি। ঢাকা ও ঢাকার বাইরে সরকারের পাশাপাশি সবাই এগিয়ে আসলে যেকোনো মানবিক বিপর্যয় মোকাবেলা সম্ভব। তিনি বলেন, আমরা ক্ষুধার্ত মানুষের পাশে থাকবো এবং সবাইকে একই অনুরোধ জানাবো।

সম্পরকিত প্রবন্ধ

Back to top button
Close
Close