নিউজ

সিলেট চেম্বারের উদ্যোগে ‘ই-পেমেন্ট’ বিষয়ক প্রশিক্ষণ কর্মশালা

আগামী ১লা জুলাই থেকে আমদানি-রপ্তানি শুল্ক-কর পরিশোধের ক্ষেত্রে চালু হচ্ছে ‘ই-পেমেন্ট’

সিলেট, ২৩ জুন : গত ২১ জুন, সোমবার, সকাল ১১টায় চেম্বার কনফারেন্স হলে দি সিলেট চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাস্ট্রি’র উদ্যোগে এবং কাস্টম্স, এক্সাইজ ও ভ্যাট কমিশনারেট, সিলেট এবং সোনালী ব্যাংক লিমিটেড এর সহযোগিতায় সিলেটের আমদানি-রপ্তানিকারক ও সিএন্ডএফ এজেন্টদের সুবিধার্থে ই-পেমেন্ট বিষয়ক এক প্রশিক্ষণ কর্মশালা অনুষ্ঠিত হয়। সিলেট চেম্বারের সভাপতি আবু তাহের মোঃ শোয়েব এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন কাস্টম্স এক্সাইজ ও ভ্যাট কমিশনারেট, সিলেট এর কমিশনার মোহাম্মদ আহসানুল হক।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে কাস্টম্স কমিশনার বলেন, জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী আগামী ১ জুলাই থেকে আমদানি-রপ্তানি সংক্রান্ত শুল্ক করাদি ই-পেমেন্ট এর মাধ্যমে পরিশোধের ব্যবস্থা চালু হতে যাচ্ছে। এর ফলে আমদানি-রপ্তানিকারক ও সিএন্ডএফ এজেন্টগণ ঘরে বসেই অনলাইনের মাধ্যমে শুল্ক-কর সরকারি কোষাগারে জমা করতে পারবেন। এতে অনেক সময় সাশ্রয় হবে। তিনি জানান, সিলেটের ওসমানী আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর ও তামাবিল স্থলবন্দরে এএসআইকোডা সিস্টেম চালু থাকায় বর্তমানে এই ২টি পোর্ট দিয়ে পণ্য আমদানি-রপ্তানির ক্ষেত্রে ‘ই-পেমেন্ট’ ব্যবহার করা যাবে। তিনি আরো জানান, ১লা জুলাই থেকে পরবর্তী ৬ মাস ২ লক্ষ টাকার অধিক শুল্ক-কর পরিশোধের ক্ষেত্রে ই-পেমেন্ট ব্যবহার করা যাবে এবং আগামী বছরের জানুয়ারি থেকে যেকোন পরিমান শুল্ক ‘ই-পেমেন্ট’ এর মাধ্যমে পরিশোধের ব্যবস্থা করা হবে। প্রাথমিকভাবে সোনালী, অগ্রণী, জনতা ব্যাংক এবং বিকাশ ও রকেটের মাধ্যমে ‘ই-পেমেন্ট’ করা যাবে, তবে পরবর্তীতে অন্যান্য ব্যাংকের মাধ্যমেও ‘ই-পেমেন্ট’ চালু করা হবে। তিনি ঝামেলা এড়াতে আমদানি-রপ্তানিকারকদের বড় অংকের এলসি’র পরিবর্তে প্রয়োজনমাফিক ছোট এলসি করার পরামর্শ দেন। এছাড়াও তিনি নতুন অবস্থায় ই-পেমেন্ট সিস্টেমে কোন জটিলতা দেখা দিলে তা তাৎক্ষণিকভাবে কাস্টম্স কর্তৃপক্ষকে অবগত করার অনুরোধ জানান।

সভাপতির বক্তব্যে সিলেট চেম্বারের সভাপতি আবু তাহের মোঃ শোয়েব বলেন, ই-পেমেন্ট সিস্টেম চালু সরকারের একটি সময়োপযোগী সিদ্ধান্ত। বর্তমান তথ্য-প্রযুক্তির যুগে এ সিস্টেমটি অনেক কার্যকর হবে। তবে যেকোন নতুন সিস্টেম চালুর পূর্বে সংশ্লিষ্ট খাতের সাথে জড়িত ব্যবসায়ীগণকে এ বিষয়ে প্রশিক্ষণ প্রদান করা জরুরী। এ বিষয়টি বিবেচনা করে সিলেট জেলা সিএন্ডএফ এজেন্ট গ্রুপের অনুরোধে সিলেট চেম্বার এ প্রশিক্ষণ কর্মশালাটি আয়োজন করেছে। প্রশিক্ষণ কর্মশালাটি আয়োজনে সার্বিক সহযোগিতার জন্য তিনি কাস্টম্স কর্তৃপক্ষ ও সোনালী ব্যাংক কর্তৃপক্ষকে আন্তরিক ধন্যবাদ জানান। ‘ই-পেমেন্ট’ সিস্টেমের মাধ্যমে আমদানি-রপ্তানি বাণিজ্যের প্রসার ঘটবে বলে তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করেন। কর্মশালায় আমদানি-রপ্তানিকারক ও সিএন্ডএফ এজেন্টদের ‘ই-পেমেন্ট’ বিষয়ে প্রশিক্ষণ প্রদান করেন সোনালী ব্যাংকের প্রিন্সিপাল অফিসার মোঃ নুরুল হক এবং অংশগ্রহণকারীদের বিভিন্ন প্রশ্নের জবাব দেন কাস্টম্স বিভাগের সহকারী কমিশনার প্রভাত কুমার সিংহ।

কর্মশালায় অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন ও উপস্থিত ছিলেন সিলেট চেম্বারের সিনিয়র সহ সভাপতি চন্দন সাহা, পরিচালক মোঃ এমদাদ হোসেন, পিন্টু চক্রবর্তী, ফালাহ উদ্দিন আলী আহমদ, ওয়াহিদুজ্জামান চৌধুরী, খন্দকার ইসরার আহমদ রকী, সাবেক সিনিয়র সহ সভাপতি শাহ আলম, সাবেক পরিচালক ও সিলেট জেলা সিএন্ডএফ এজেন্ট গ্রুপের সভাপতি মোঃ বশিরুল হক, সোনালী ব্যাংকের সিনিয়র অফিসার আব্দুল হান্নান, তামাবিল স্থলবন্দরের রাজস্ব কর্মকর্তা মোঃ আশিকুর রহমান, সিলেট চেম্বারের সচিব গোলাম আক্তার ফারুক, যুগ্ম সচিব নুরানী জাহান কলি, সহ-সচিব সানু উদ্দিন রুবেল, আইটি অফিসার আতিকুর রহমান, এক্সিকিউটিভ অফিসার শাহআলম রাফি ও আমদানি-রপ্তানিকারকবৃন্দ। অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন সিলেট চেম্বারের সিনিয়র এক্সিকিউটিভ অফিসার মিনতি দেবী।

সম্পরকিত প্রবন্ধ

Back to top button
Close
Close