নিউজ

লণ্ডনে ব্যারিষ্টার মওদুদ আহমদের স্মরণে ভার্চুয়াল শোকসভা

।। নাঈম হাসান ।।

লণ্ডন, ২৩ মার্চ – বাংলাদেশের বর্ণাঢ্য রাজনীতিবিদ ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদের স্মরণে শোকসভা ও বিশেষ দোয়া অনুষ্ঠিত হয়েছে যুক্তরাজ্যের রাজধানী লণ্ডেনে। গ্রেটার নোয়াখালী এডুকেশন ট্রাস্ট নামক সংগঠনের উদ্যোগে আয়োজিত হয় শোকসভা ও দোয়া অনুষ্ঠানটি।

গ্রেটার নোয়াখালী এডুকেশন ট্রাস্টের প্রধান উপদেষ্টা প্রফেসর ড. আবুল কালামের সভাপতিত্বে সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক সাংবাদিক শামসুল আলম লিটনের সঞ্চালনায় ভার্চুয়াল শোকসভায় উপস্থিত ছিলেন সংগঠনের সভাপতি এ কে আজাদ।

ভার্চুয়াল শোক সভাটিতে যুক্তরাজ্যসহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশ থেকে যুক্ত হন অনেকেই। প্রবাসীদের অংশগ্রহণের পাশাপাশি বাংলাদেশ থেকেও যোগ দেন মেজর (অব:) আবদুল মান্নান, শহীদ উদ্দিন চৌধুরী এ্যানি, ব্যারিস্টার মাহবুব উদ্দিন খোকন, আবুল খায়ের ভূঁইয়াসহ দেশের শীর্ষস্থানীয় অনেক নেতৃবৃন্দ।

পবিত্র কোরআন থেকে তেলাওয়াতের মাধ্যমে শুরু করে অনুষ্ঠানের মাঝে এবং শেষে দোয়া অনুষ্ঠিত হয়।

ভার্চুয়াল শোকসভায় অংশ নিয়ে এই সময় অনেকেই শোকাহত কন্ঠে ব্যারিষ্টার মওদুদ আহমেদের সাথে ব্যাক্তিগত সম্পর্কের বিভিন্ন সুন্দর স্মৃতিচারণ করেন। বাংলাদেশের জন্য ব্যারিষ্টার মওদুদ আহমদের অবদান এবং দেশের জন্য এক অপূরণীয় ক্ষতি বলে উল্লেখ করেন। ব্যারিষ্টার মওদুদের চলে যাওয়া বাংলাদেশের রাজনৈতিক মাঠের জন্য গভীর সংকট সৃষ্টি করেছে বলে মনে করেন অনেকেই। বিশেষ করে বৃহত্তর নোয়াখালীর ব্যাপক উন্নয়নে অবদান রাখার কথা স্মরণ করেন সকলে।

সভায় অন্যানের মাঝে বক্তব্য রাখেন মোখলেছুর রহমান চৌধুরী, ড. হাফিজ মুনির উদ্দিন আহমেদ, সাংবাদিক ওলি উল্যাহ নোমান, প্রফেসর মনজুর শওকত, ব্যারিষ্টার নাজির আহমদ, শাহ আলম কাজল, হুমায়ুন কবির জাহাঙ্গীর, সাংবাদিক আতাউল্ল্যাহ ফারুক, মোশাররফ হোসাইন কিরণ, প্রফেসর শাহ আলম, নজরুল খশরু, আবু জাফর, ব্যারিষ্টার বেলায়েত হোসাইন, ব্যারিষ্টার মোহাম্মদ গাফফার, ব্যারিষ্টার মুজিবুল হক, ব্যারিষ্টার ওমর ফারুক, ড. হাসনাত হোসাইন, ড. মোহাম্মদ রহমান, ইমতিয়াজ এনাম, জসিম আবুল হোসাইন, মুজাহিদুল ইসলাম, মজিবুল হক, মমিনুল হক, মনির হোসাইন, সাইফুল ইসলাম, জিয়া হাসান, এ এম মাহবুব উদ্দিন, আব্দুল কাদের সালেহ, আবুল কালাম আজাদ, আনিসুল ইসলাম, আনোয়ার হোসাইনসহ অনেকেই অংশগ্রহণ করেন।

মওদুদ আহমদকে স্মরণ করে বক্তব্যে মেজর মান্নান বলেন, মওদুদ আহমদ দলমতের উর্ধ্বে বিশাল ব্যাক্তিত্বের একজন মানুষ। নম্রতা ভদ্রতায় যার দ্বিতীয় উদাহরণ খুঁজে পাওয়া দুষ্কর। বাংলাদেশের রাজনীতির মাঠে তিনি অনস্বীকার্য একজন ছিলেন।

বক্তারা বাংলাদেশের মেধাবী এই কৃতি সন্তানের সুদীর্ঘ রাজনৈতিক জীবন এবং  আজীবন নিস্বার্থ মানুষের কল্যানে কাজ করে যাওয়ার কথা স্মরণ করেন। ব্যারিষ্টার মওদুদ আহমদের দেশপ্রেম, নৈতিকতা এবং সর্বদা গনতন্ত্রের পক্ষে অবস্থান আলোচনায় উঠে আসে।

বযাক্তিগতভাবে ব্যারিষ্টার মওদুদ কোমল আচরণ এবং উদর মানসিকতার মানুষ ছিলেন। একসময় জাতীয় নেতৃবৃন্দের অনেকেই ব্যারিষ্টার মওদুদ আহমদের ব্যাক্তিত্বের প্রশংসা করেন। পরিশেষে তার নাযাতের জন্য দোয়া করেন।

সাবেক প্রধানমন্ত্রী ও বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার মওদুদ আহমেদ গেল ১৬ মার্চ সিঙ্গাপুরে মারা নয়। উন্নত চিকিৎসার জন্য গত ১ ফেব্রুয়ারি রাতে সিঙ্গাপুরে নেয়া হয় এই রাজনীতিককে। বেশ কিছুদিন ধরে তিনি নানা রকম শারীরিক সমস্যায় ভুগছিলেন। সর্বশেষ তিনি কিডনি ও ফুসফুস রোগে চিকিৎসাধীন ছিলেন।

১৯৪০ সালের ২৪ মে নোয়াখালীর কোম্পানীগঞ্জ উপজেলায় জন্ম নেন মওদুদ আহমেদ। ১৯৭৯ সালে প্রথমবারের মতো সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। ব্যারিষ্টার মওদুদ আহমদ একাধারে বাংলাদেশের সাবেক ভাইস প্রেসিডেন্ট, প্রধানমন্ত্রী, উপ-প্রধানমন্ত্রী এবং আইন, সংসদ ও বিচার বিষয়কমন্ত্রীসহ বিভিন্ন সময়ে ভিন্ন ভিন্ন মন্ত্রনালয়ের দায়িত্ব পালন করেছেন। বিশ্বের নামকরা অনেক বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রফেসরও ছিলেন তিনি। বরেণ্য মেধাবী রাজনৈতিক ব্যারিষ্টার মওদুদের মৃত্যু বাংলাদেশের রাজনীতিতে গভীর শূন্যতার সৃষ্টি করলো।

সম্পরকিত প্রবন্ধ

Back to top button
Close
Close