নিউজ

করোনার ক্ষতি পোষাতে ৪শ’ বিলিয়ন পাউণ্ডের বাজেট: ২৮ বছরের মধ্যে সর্বোচ্চ ট্যাক্স বৃদ্ধি

ব্যবসায়িক খাতে ৬৫ বিলিয়নের আর্থিক সহায়তা
সেপ্টেম্বর পর্যন্ত বাড়লো ফার্লো এবং ৫% ভিএটি
৫ বিলিয়ন পাউণ্ডের ‘রিস্টার্ট গ্রান্ট’
ইউনিভার্সেল ক্রেডিটের ২০ পাউণ্ড
কন্টাক্টলেস কার্ডে শ’ পাউণ্ডপর্যন্ত খরচ করার সুবিধা

।। সুরমা প্রতিবেদন ।।
লণ্ডন, ৫ মার্চ – বুধবার মহামারিকালীন বাজেট ঘোষণা করেছেন চ্যান্সেলর ঋষি সুনাক। বাজেটে মারাত্মকভাবে করোনা মহামারি ভাইরাসে ক্ষতিগ্রস্ত বৃটেনের অর্থনীতিকে পুনরুদ্ধারের পাশাপাশি ব্যবসা প্রতিষ্ঠানসহ জনসাধারণের সাহাযার্থে কোভিড সঙ্কটে ৪শ’ বিলিয়ন পাউ-ের সরকারি ব্যয় রেখে বাজেট ঘোষণা করা হয়েছে। বাজেটে করোকালীন ক্ষতিগ্রস্ত ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান ও মানুষের সহায়তায় আর্থিক সুবিধা থাকলেও তা পোষাতে বড় আকারের ট্যাক্স বৃদ্ধি করা হয়েছে। ইনকাম ট্যাক্স ফ্রিজ করা হলেও করপোরেশন বা বাণিজ্যিক ক্ষেত্রে ট্যাক্স বৃদ্ধির পরিমাণ ২৮ বছরের মধ্যে সর্বোচ্চ। গত বছরের শুরুতে মহামারি আক্রান্তকালীন সময়ে চ্যান্সেলরের দায়িত্বপ্রাপ্ত ঋষি সুনাক ফার্লো, ইট আউট হেলপ আউট স্কিমসহ করোকালীন বিভিন্ন আর্থিক সুযোগ প্রদানের মাধ্যমে ব্রিটিশ জনসাধারণের নজর কাড়তে সক্ষম হন। সাজিদ জাবেদের স্থলাভিসিক্ত ঋষি সুনাককে ইতোমধ্যে পূর্বেকার যে কোনো চ্যান্সেলরের চেয়ে ব্যতিক্রম হিসেবে দেখছেন অনেকে।

গত বুধবার পেশকৃত বাজেটেও মহামারি আক্রান্ত ব্যবসাপ্রতিষ্ঠানসমূহ ও জনসাধারণের সহায়তায় ফার্লো স্কিমের মেয়াদ বৃদ্ধি, ইনকাম টেক্স ফ্রিজ, ইউনিভার্সেল ক্রেডিটে ভর্তুকি এবং কন্টাক্টলেস কার্ডে খরচের সীমা ১শ’ পাউণ্ড পর্যন্ত বৃদ্ধির বিষয়টি প্রশংসিত হয়েছে।
চ্যান্সেলর তার বাজেট বক্তৃতায় ৩শ’ বছরের মধ্যে সবচেয়ে মন্দায় পতিত ব্রিটিশ অর্থনীতিকে আগামী বছরের মধ্যভাগে পূর্বে অবস্থায় ফিরে যাবে বলে আশা প্রকাশ করেন।
তবে চিন্তা বিষয়টি হলো যে, এই বাজেট বাস্তবায়নে সরকারকে প্রায় ৬শ’ বিলিয়ন পাউণ্ড ঋণ গ্রহণ করতে হবে।

এদিকে, বিরোধীদল লেবার নেতা কিয়ার স্টারমার তার প্রতিক্রিয়ায় বলেছেন, মহামারীর আগের তুলনায় বৃটেনের অর্থনীতির ভিত্তি শক্তিশালী রূপে পুনঃনির্মাণের জন্য কংক্রিট পরিকল্পনা তৈরীর পরিবর্তে ফাটলের উপর দাঁড়িয়ে রয়েছে।
তিনি বলেন, আমার আশঙ্কা যে— লক্ষ লক্ষ কী ওয়ার্কার যাদের বেতন ফ্রিজ করা করা হয়েছে, ঋণে ডুবে থাকা অসংখ্য ব্যবসায়ী, বেশী কাউন্সিল ট্যাক্স প্রদানকারী পরিবার এবং কাজ হারানো মিলিয়ন মিলিয়ন মানুষের কাছে এই বাজেট ভালো লাগবে না।
চ্যান্সেলর কর্তৃক ঘোষিত বাজেটের ব্যাপারে সরকারী পরিসংখ্যানগুলি এই বছর ব্রিটিশ অর্থনীতির ৪% বৃদ্ধি পাওয়ার পূর্বাভাস দিয়েছে, যা ২০২০ সালে প্রায় ১০% হ্রাস থেকে পুনরুদ্ধার। টিকা কার্যক্রমের দ্রুত অগ্রগতির সাথে অর্থনীতি ছয় মাস আগে তার মধ্য-মহামারী স্তরে ফিরে আসতে সক্ষম হবে বলে প্রত্যাশা ব্যক্ত করা হয়েছে।

৫ বিলিয়ন পাউণ্ডের ‘রিস্টার্ট গ্রান্ট’ ঘোষণা, ইউনিভার্সেল ক্রেডিট বাড়বে সপ্তাহে ২০ পাউণ্ড:
লকডাউন উঠে যাওয়ার পর ব্যবসা-প্রতিষ্ঠানগুলো যাতে নতুন উদ্যমে কার্যক্রম চালু করতে পারে সেজন্য ৫ বিলিয়ন পাউণ্ডের ‘রিস্টার্ট গ্রান্ট’ রাখা হয়েছে বাজেটে। রেস্টুরেন্ট, পাব, হেয়ার ড্রেসার, বিউটি স্যালুন ছোটখাট দোকান-পাটগুলো এ গ্রান্ট থেকে উপকৃত হবে।
লকডাউন পরবর্তী সময়ে সরকার দ্রুত ব্যবসা-বাণিজ্যকে চাঙ্গা করে তুলতে চায়। লকডাউনের কারণে সবচেয়ে বেশি ক্ষতির শিকার হয়েছে রেস্টুরেন্ট এবং পাবগুলো। লকডাউন উঠে যাওয়ার পর সবচেয়ে ক্ষতির শিকার ব্যবসাগুলো পুনরায় চালু করতে সহায়তার জন্য সরকার এই ৫ বিলিয়ন পাউ- গ্র্যা- বরাদ্দ করেছে। এই ৫ বিলিয়ন পাউণ্ড শুধুমাত্র ইংল্যাণ্ডের ব্যবসা-প্রতিষ্ঠানগুলোর জন্য। স্কটল্যান্ড, ওয়েলস এবং নর্দান আয়ারল্যাণ্ডের জন্য ৭৯৪ মিলিয়ন পাউণ্ডের আলাদা তহবিল রাখা হয়েছে।
ঘোষণা অনুযায়ী দুইটি ভিন্ন ক্যাটাগরিতে ব্যবসা প্রতিষ্ঠানগুলো এই রিস্টার্ট গ্রান্ট পাবে। রেস্টুরেন্ট, পাব সহ লোয়ার ব্যাণ্ডের প্রতিষ্ঠানগুলো প্রতিটি প্রিমিসেস ৬ হাজার পাউণ্ড পর্যন্ত গ্র‍্যাণ্ট পাবে। আর হোটেল, জিম এবং হেয়ারড্রেসার সহ হায়ার ব্যান্ডের প্রতিষ্ঠানগুলো ১৮ হাজার পাউণ্ড পর্যন্ত এ গ্রান্ট পাবে।
সরকারী হিসাবে প্রায় ২ লাখ ৩০ হাজার ব্যবসা প্রতিষ্ঠান হায়ার ব্যাণ্ডের গ্রান্টের জন্য যোগ্য হবে। এর পাশাপাশি অন্তত ৪ লাখ ৫০ হাজার দোকানপাট এই গ্রান্টের জন্য আবেদন করতে পারবে বলে ধারণা করছে ট্রেজারি ডিপার্টমেন্ট। ব্যবসাগুলোর রেইটএবল ভেল্যুর ওপর নির্ভর করবে ব্যাণ্ড। এই গ্রান্ট বিলির দায়িত্বে থাকবে কাউন্সিল বা লোকাল অথোরিটিগুলো। এপ্রিল থেকে লোকাল অথোরিটিগুলো সরকারী এই অনুদানের অর্থ পাবে। তখন থেকেই এর বিরতণও শুরু হবে।

সেপ্টেম্বর পর্যন্ত ফার্লো ও ৫% ভিএটি প্রদানের মেয়াদ বৃদ্ধি:
সুনাক আরও জানান, এপ্রিল মাসে শেষ হচ্ছে চলমান ফারলো স্কিম। এ স্কিমের মাধ্যমে ৪৭ লাখ লোক উপকৃত হয়েছেন বলে জানান তিনি। এ স্কিমকে আগামী সেপ্টেম্বর পর্যন্ত বর্ধিত করা হয়েছে। এর অর্থ হলো, ২১ জুন অর্থনীতি পুনঃচালুর পরও এই সহায়তা অব্যাহত থাকবে। এই স্কিমের আওতায় সেলফ এমপ্লয়েডের অতিরিক্ত ৬শ’ হাজার মানুষ ৭,৫০০ পাউণ্ড পর্যন্ত গ্রাণ্ড পাবে। এছাড়া, আসন্ন বাজেটে ইউনিভার্সেল ক্রেডিটের পরিমাণ সপ্তাহে ২০ পাউণ্ড করে বাড়ানো হবে বলে জানান চ্যান্সেলর।
হ্রাসকৃত ৫% ভিএটি প্রদানের মেয়াদও সেপ্টেম্বরের শেষ পর্যন্ত বহাল থাকবে বাজেটে উল্লেখ করা হয়েছে। এতে করে ব্যবসায়ীরা অনেক উপকৃত হবেন বলে আশা করা হচ্ছে।

কন্টাক্টলেস কার্ডের খরচসীমা ১শ’ পাউণ্ডে উন্নীত:
কন্টাক্টলেস কার্ডের মাধ্যমে খরচ সীমা ছিলো ৩০ পাউণ্ড। মহামারির সময় তা বাড়িয়ে করা হয় ৪৫ পাউ-। এবারের বাজেটে তা বাড়িয়ে করা হয়েছে ১০০ পাউণ্ড পর্যন্ত। তবে কার্ড নিয়ন্ত্রক সংস্থাগুলো বলছে যে, ব্যবসায়ী ও ব্যবহারকারীরা উচ্চতর এই সীমাটি গ্রহণ করবে কিনা তা এখনও নিশ্চিত নয়। কারণ কার্ডের ব্যবহারের সাথে জড়িত জালিয়াতির ঝুঁকি বিষয়ে আশঙ্কা দেখা দিয়েছে। এছাড়া, জুন পর্যন্ত স্টাম্প ডিউটি হলিডে সুবিধা রাখা হয়েছে। ফলে ৫শ’ হাজার পাউ- পর্যন্ত মূল্যের বাড়ি কেনার ক্ষেত্রে এই সুবিধা পাবেন ক্রেতারা এবং তাতে ১৫ হাজার পাউণ্ড সাশ্রয় হবে। ভ্যাকসিন কার্যক্রমের জন্য আরো অতিরিক্ত ১.৬৫ বিলিয়ন পাউণ্ড বরাদ্দ করা হয়েছে। সিনেমা, থিয়েটারসহ কালচারাল সংস্থাসমূহের সাহায্যার্থে অতিরিক্ত ৩শ’ মিলিয়ন পাউণ্ডের বরাদ্দ রেখে ইউকের টিভি এবং ফিল্ম ইণ্ডাস্ট্রি স্কিম পুনঃচালুর স্কিম নেওয়া হয়েছে।

উল্লেখ্য, সরকার ইতিমধ্যে লকডাউন তুলে নেয়ার রোডম্যাপ ঘোষণা করেছে। রোডম্যাপ অনুযায়ী ৮ মার্চ থেকে স্কুলগুলো খুলবে এবং কিছু বিধি-নিষেধ শিথিল হবে। এরপর ২৯ মার্চ, ১২ এপ্রিল এবং ১৭ মে দফায় দফায় শিথিল হবে আরও কিছু বিধি-নিষেধ এবং চালু হতে থাকবে বন্ধ থাকা ব্যবসা কার্যক্রম। আর সবকিছু ঠিক থাকলে ২১ জুন থেকে উঠে যাবে সকল বিধি-নিষেধ।

সম্পরকিত প্রবন্ধ

Back to top button
Close
Close