নিউজ

নর্থ-ইস্ট ইংল্যাণ্ডে করোনার ব্যাপক বিস্তার: লকডাউন ঘোষণা, কারফিউ জারী

টেস্টিং বিপর্যয়, ব্যর্থতা স্বীকার বরিস জনসনের

লণ্ডন, ১৭ সেপ্টেম্বর – পুরো বৃটেনজুড়ে আশঙ্কাজনকভাবে অবার বাড়ছে করোনা সংক্রমণ। একই সাথে মৃতের সংখ্যাও বাড়বে আশঙ্কা প্রকাশ করেছেন খোদ প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন। সবচেয়ে খারাপ পরিস্থিতি বিরাজ করছে নর্থ-ইস্ট ইংল্যাণ্ডে। করোনাভাইরাসের সংক্রমণ রোধে সরকারের পক্ষ ১৭ সেপ্টেম্বর, বৃহস্পতিবার মধ্যরাত থেকে অত্র এলাকাসমূহে লকডাউন কার্যকরের ঘোষণা দেওয়া হয়েছে। ব্রিটিশ সরকারের হেলথ সেক্রেটারি ম্যাট হ্যানকক বৃহস্পতিবার এই ঘোষণা করেন। লকাডাউনের পাশাপাশি পারিবারিকভাবে মিলিত হওয়া রোধ করতে কারফিউও বলবৎ থাকবে। এতে করে নর্থ-ইস্ট ইংল্যাণ্ডের কয়েক মিলিয়ন লোকের স্বাভাবিক চলাচলে মারাত্মক প্রভাব ফেলবে।
অপরদিকে, কার্যক্রমে ব্যাপক বিপর্যয় দেখা দিয়েছে। সরকার পর্যাপ্ত টেস্টিং সুবিধা দিতে পারছে না। প্রথমদিকে টেস্টিং করার পর ২৪ ঘন্টায় যতগুলো টেস্টের ফলাফল দেওয়া সম্ভব হতো তা আর এখন করা সম্ভব হচ্ছে না। প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন টেস্টিং বিঘিœত হওয়ার ব্যর্থতার দায় স্বীকার করেছেন। ইতোমধ্যে হেলথ সেক্রেটারি ম্যাট হ্যানকক এই ব্যর্থতার জন্য ব্যাপক সমালোচনার সম্মুখীন হয়েছেন।
হেলথ সেক্রেটারি ম্যাট হ্যানকক বৃহস্পতিবার পার্লামেন্টে দেওয়া এক বিবৃতিতে উল্লেখিত এলাকায় লকডাউন সংক্রান্ত ব্যাপক বিধিনিষেদ তুলে ধরে। যার মধ্যে পাব ও রেস্টুরেন্টগুলোর জন্য রাত ১০ টা থেকে ৫ টা পর্যন্ত কারফিউ এবং নিজ বাড়ীর বাইরের কাউকে বা কোনো স্বেচ্ছাসেবীর সাথে দেখা করার নিষেধাজ্ঞা অন্তর্ভুক্ত রয়েছে। খাবার ও পানীয়র মাধ্যমে আতিথেয়তা কেবল টেবিল পরিষেবার মধ্যে সীমাবদ্ধ থাকবে।
হেলথ সেক্রেটারি বলেন তার বক্তব্যে বলেন, করোনভাইরাসটির বিরুদ্ধে যুদ্ধ শেষ হয়নি এবং শীত এগিয়ে আসার সাথে সাথে পরবর্তী পদক্ষেপ নেওয়া খুবই জরুরী।
সম্প্রতি নর্থম্বারল্যা-, নিউক্যাসল, সান্দারল্যাণ্ড, উত্তর এবং দক্ষিণ টাইনেসাইড, গেটসহেড এবং কাউন্টি ডারহাম কাউন্সিল এলাকাগুলো ভাইরাস সংক্রমণের হার অস্বাভাবিকভাবে বাড়ছে। শেষ পর্যন্ত নতুন করে লকডাউনের আওতাভূক্ত হওয়ায় ওইসব এলাকাকে ব্যাপকভাবে প্রভাবিত করবে।
এদিকে, বৃটেনে নতুন করে করোনা সংক্রমিত হয়েছেন প্রায় ৪ হাজার মানুষ। গত ৮ মে‘র পর ১৬ সেপ্টেম্বর, বুধবার পর্যন্ত সর্বাধিক সংখ্যক ৩৯৯১ জন করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। বুধবার পর্যন্ত ২৪ ঘন্টায় মৃত্যুবরণ করেছেন ২০ জন। মঙ্গলবার ছিলো ২৭ জন, সোমবার ছিলো ৯ জন, রবিবার ছিলো ৫ জন, শনিবার ছিলো ৯ জন। মোট মৃতের সংখ্যা ৪১ হাজার ৬৮৪ জন।
বিবিসিতে প্রকাশিত প্রতিবেদন অনুসারে গত ২৪ ঘন্টায় (১৬ সেপ্টেম্বর, বুধবার) নতুন করে আক্রান্ত হয়েছেন ৩৯৯১ জন। মঙ্গলবার ছিলো ৩১০৫ জন, সোমবার ছিলো ২৬২১ জন, রবিবার ছিলো ৩৩৩০ জন। এ পর্যন্ত মোট আক্রান্তের সংখ্যা ৩ লাখ ৭৮ হাজার ২১৯ জন।

সম্পরকিত প্রবন্ধ

Back to top button
Close
Close