নিউজ

আলতাব আলী পার্ক থেকে হাইকমিশন অভিমুখে লংমার্চ ও স্মারকলিপি প্রদান, বাংলাদেশে গুম খুন ও নিপীড়ন বন্ধের দাবী

।। সুরমা প্রতিবেদন ।।
লণ্ডন, ১৯ নভেম্বর : বাংলাদেশে গুম-খুন ও সাম্প্রদায়িক দাঙ্গার অপচেষ্টা এবং ডিজিটাল সিকিউরিটি আইন বাতিলের দাবিতে গত ১৫ নভেম্বর, সোমবার দুপুর ১২টায় পূর্ব লণ্ডনের আলতাব আলী পার্ক থেকে বাংলাদেশ হাইকমিশনের উদ্দেশ্যে নিরাপদ বাংলাদেশ চাই ইউকে শাখার উদ্যোগে লংমার্চ অনুষ্ঠিত হয়। লংমার্চ পরবর্তী সমাবেশ থেকে প্রধানমন্ত্রী বরাবরে হাইকমিশনের মধ্যেমে স্মারকলিপি প্রদান করে এক মানববন্ধন কর্মসূচি অনুষ্ঠিত হয়। এতে সভাপতিত্ব করেন সংগঠনের সভাপতি মুসলিম খান এবং সভা পরিচালনা করেন সেক্রেটারী তাহমিদ হোসেন খান।

বাংলাদেশ লণ্ডন হাইকমিশনে স্মারকলিপি প্রদান

সভায় প্রধান অতিথি হিসাবে বক্তব্য রাখেন বিশিষ্ট গণমাধ্যম ব্যক্তিত্ব, সাপ্তাহিক সুরমা সম্পাদক শামসুল আলম লিটন। বিশেষ অতিথি হিসাবে বক্তব্য রাখেন বিশিষ্ট রাজনীতিবিদ আশিকুর রহমান আশিক, মানবাধিকার নেতা নুরুল ইসলাম, এনবিসির উপদেষ্টা দিলোয়ার হোসেন, জাস্টিজ ফর ভিকটিম এর সিনিয়র সহ-সভাপতি সৈয়দ মোজাক্কির আহমদ, এনবিসির সহ-সভাপতিবৃন্দ যথাক্রমে মো. তরিকুল ইসলাম, আমিনুল ইসলাম মুকুল, মো. রায়হান উদদীন, করিম মিয়া, আলী হোসেন প্রমুখ।
প্রধান অতিথি শামছুল আলম লিটন বলেন বাংলাদেশের মতো সাংবিধানিক একটা দেশে অসাংবিধানিক সরকার বসে আছে। যারা সংবিধানের কথা, গণতন্ত্রের কথা বলে স্বাধীন সংবাদ প্রচার করেন তাদেরকে গুম কার হয়, মামলা-হামলা ও নির্যাতন করে দেশ ত্যাগে বাধ্য করা হয়। গুম হওয়া এম ইলিয়াস আলী, আযমী, আরমানসহ সকলকে খুঁজে বের করা সরকারের দায়িত্ব। আশা করি সরকার জনগণের নিরাপত্তার দায়িত্ব নেবে।
বিশেষ অতিথি আশিকুর রহমান আশিক বলেন, বাংলাদেশের অবৈধ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বিদেশে এসে মিথ্যা কথা বলতে পারবেন না। সেই দিন শেষ হয়ে গেছে। গণতন্ত্র পুনরুদ্ধারের দাবীতে আমাদের আন্দোলন চলবে।

সভাপতির বক্তব্যে মুসলিম খান বলেন, ডিজিটাল সিকিউরিটি আইনের মাধ্যমে সাংবাদিকসহ সকল বিরোধী মতের মানুষের উপর দমন-পীড়ন চালিয়ে যাচ্ছে আওয়ামী লীগ সরকার। আমরা স্মারকলিপির মাধ্যমে বাংলাদেশের সরকার প্রধানকে জানিয়ে দিতে চাই অনতিবিলম্বে এই কালো আইন বাতিল করে মানুষের কথা বলার অধিকার, ভোটের অধিকার, মত প্রকাশের স্বাধীনতা দিতে হবে। অন্যতায় আন্তর্জাতিক আদালতে মামলা করতে বাধ্য হব।
পরিশেষে লণ্ডন মেট্রোপলিটন পুলিশকে ধন্যবাদ জানানো হয় তারা পারমিশন এবং নিরাপত্তা দেওয়ার জন্য।

এছাড়া বক্তব্য রাখেন এনবিসির সেক্রেটারীবৃন্দ যথাক্রমে মির্জা আবুল আহমদ, মো. নজরুল ইসলাম ও আব্দুস সামাদ খান, ইভেন্ট ম্যানেজমেন্ট সেক্রেটারি মো. আসয়াদুল হক, সাংগঠনিক সম্পাদকবৃন্দের মধ্যে বুরহান উদদীন চৌধুরী, আহমদ আলী, আরিফ আহমদ, মো. মাহফুজুর রহমান, এনবিসির নির্বাহী কমিটির সদস্যবৃন্দের মধ্যে বিএমএম তামজিদ, মোহাম্মদ গোলজার হোসেন, মোহাম্মদ আলী, আবুল বাশার চৌধুরী, মো. মিফতা উদদীন, নাজির আহমদ, খালেদ হুসাইন, মো. মামুন মিয়া, মো. ইকবাল হোসেন, মাসুকে এলাহী, বাবুল আহমদ, আলী উজ্জল, ফয়সল আহমদ, মোহাম্মদ মনসুর উদদীন, আব্দুল বাছিত, মো. হাসান আহমদ, মো. আলম আহমদ, মো. শাহজাহান আহমদ, মো. ফাহাদুজ্জামান, রমজান সরকার রাজা, মো. ফরহাদ আলী, শেরওয়ান আলী, ফারিয়া আক্তার সুমী, ছাবের আহমদ, মো. আমিনুল ইসলাম সফর, মো. মাহবুবুর রহমান, ফয়েজ আহমদ, মো. আবু তাহের, মো. বেলাল আহমদ, নজরুল ইসলাম প্রমুখ।

সম্পরকিত প্রবন্ধ

Back to top button
Close
Close