নিউজ

“এটি জঘন্য ও নজীরবিহীন: বৈধ অস্ত্র নিয়ে অবৈধ মামলা-রায়” বহুল আলোচিত কর্নেল শহিদসহ ৪ জনের অস্ত্র মামলায় যাবজ্জীবন

।। বিশেষ প্রতিবেদক ।।
লণ্ডন, ১৭ নভেম্বর – সেনাপ্রধানের সঙ্গে টেলি সংলাপ, গুম-খুন ও দুর্নীতির দায়ে চিহ্নিত শীর্ষ ব্যক্তিদের নিয়ে নানা আলোচনার জন্ম দিয়ে আলোচিত লে. কর্নেল (অব.) শহীদ উদ্দিন ও তার স্ত্রী ফারজানা আনজুম খানসহ ৪ জনকে অস্ত্র নিয়ন্ত্রণ আইনের মামলায় যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত। মঙ্গলবার ঢাকার তৃতীয় অতিরিক্ত মহানগর দায়রা জজ আদালতের বিচারক রবিউল আলম এ রায় ঘোষণা করেন।

ঢাকা থেকে সংবাদদাতা জানিয়েছেন, আদালতে সরকারি আইনজীবী বলেছেন, কর্নেল শহিদ উদ্দিন ও তার স্ত্রী ফারজানা আনজুম খান পলাতক। পরে আদালত তাদের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করেন। অপর দুই আসামি সৈয়দ আকিদুল আলী ও খোরশেদ আলম পাটোয়ারীকে জেল থেকে আদালতে আনা হয়। রায় ঘোষণার পর তাদের সাজা পরোয়ানা দিয়ে জেলে পাঠানো হয়েছে।

গত বছরের ১৭ জানুয়ারি শহিদ উদ্দিন চৌধুরীর স্ত্রী’র মালিকানাধীন ক্যান্টনমেন্ট থানাধীন বারিধারা ডিওএইচএসের ২ নম্বর রোডের ১৮৪নং বাসায় অভিযান চালায় আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। পরে সেখান থেকে ৫ রাউন্ড গুলি ভর্তি ম্যাগাজিনসহ একটি পিস্তল, ৬ রাউন্ড গুলি ভর্তি ম্যাগাজিনসহ আরেকটি পিস্তল, একটি শটগান ও কার্তুজ উদ্ধার করা হয়।

এ ঘটনায় কাউন্টার টেরোরিজম ইউনিটের পুলিশ পরিদর্শক বিপ্লব কিশোর শীল ওই দিনই রাজধানীর ক্যান্টনমেন্ট থানায় মামলা করেন। তদন্ত শেষে গত বছরের ৪ এপ্রিল আদালতে চার্জশিট দেয়া হয়। গত বছরের ১৩ আগস্ট আদালত আসামিদের বিরুদ্ধে চার্জ (অভিযোগ) গঠন করেন।

কর্নেল শহীদের বক্তব্য:
এই মামলা ও রায়ের ব্যাপারে লন্ডনে অবস্থানরত লে. কর্নেল শহীদ উদ্দিন সাপ্তাহিক সুরমা’কে বলন, তাঁর সঙ্গে বিরোধের জের ধরে প্রধানমন্ত্রীর প্রতিরক্ষা উপদেষ্টা জেনারেল তারেক সিদ্দিকী গত দুই বছরে তাঁর পরিবারের কয়েকজন সদস্য ও তার আইনজীবীকে কে গুম করিয়েছেন। তাঁদের খোঁজ পাওয়া যাচ্ছে না. আইন শৃঙ্খলা বাহিনী তার পরিবারকে নিরাপত্তার বদলে হুমকি, দিনের পর দিন নির্যাতন করে চলেছে। তিনি বলেন, এই ব্যাপারে আল জাজিরা, নেত্র নিউজ, সাপ্তাহিক সুরমা’সহ আন্তর্জাতিক সংবাদ মাধ্যমে প্রামাণ্য সংবাদ প্রকাশিত হয়েছে। তিনি বলেন, তারেক সিদ্দিকীর অন্যায় ও অপকর্মের বিরোধিতা করার কারণেই তিনি সরকারের সর্বোচ্চ ক্ষমতা ব্যবহার করে আমার ও আমার পরিবারের সদস্যদের উপর চরম নির্যাতন করে যাচ্ছেন। সমস্ত প্রমাণ দিয়ে প্রধানমন্ত্রী সহ সকলের কাছেই এইসব অন্যায়ের প্রতিকার চাওয়া হয়েছে। তিনি বলেন, এইসব কারণেই তাঁর (কর্নেল শহীদের) মহাখালী ডি ও এইচ এস’র বাড়ি তল্লাশি চালায় ও সেই বাড়ি থেকে কয়েকটি লাইসেন্সকৃত অস্ত্র , আমার লাইব্রেরি থেকে বিপুল পরিমান ধর্মীয় ও রাজনৈতিক গবেষণাধর্মী গ্রন্থ জব্দ করে অন্যায়ভাবে। কর্নেল শহীদ জানায়, ওই তল্লাশিকালে যেসব অস্ত্র আটক করা হয়েছে তার সবগুলোই ছিলো বৈধ ও লাইসেন্সকৃত। সুতরাং এই মামলা বলতে গেলে বৈধ অস্ত্র নিয়ে অবৈধ মামলা ও তারেক সিদ্দিকীর ষড়যন্ত্রের বহিঃপ্রকাশ। তিনি বলেন, এটি একটি জঘন্য উদাহরণ হয়ে গেলো যা নজীরবিহীন। জনগণ নিশ্চয়ই একদিন এইসব ষড়যন্ত্রের উপযুক্ত জবাব দেবে। তবে এই ব্যাপারে জেনারেল তারেক সিদ্দিকীর কোনো বক্তব্য পাওয়া যায়নি।

সম্পরকিত প্রবন্ধ

Back to top button
Close
Close