নিউজ

টাওয়ার হ্যামলেটসে বাংলা শিক্ষা কার্যক্রম: বল এখন ভোটারদের কোর্টে

এ সপ্তাহের সম্পাদকীয়

বৃটেনের বাঙালিপাড়া হিসেবে খ্যাত টাওয়ার হ্যামলেটসে বাংলা শিক্ষা কর্মসূচী আবারো সংবাদ শিরোনাম হয়েছে। টাওয়ার হ্যামলেটসে কমিউনিটি ল্যাঙ্গুয়েজ সার্ভিসের মাধ্যমে ১৯৮২ সাল থেকে বিনামূল্যে শিশুদের মাতৃভাষা শিক্ষা কার্যক্রম চালু আছে। ২০১৯ সালের শুরুর দিকে টাওয়ার হ্যামলেটস কাউন্সিল আর্থিক অনটনের কথা বলে ল্যাঙ্গুয়েজ সার্ভিস বন্ধ করে দেয়ার সিদ্ধান্ত নেয়। তখন স্থানীয় অধিবাসী ও অন্যান্য মহলের চাপের মুখে ফ্রেব্রেুয়ারী (২০১৯) মাসে সার্বিক পর্যালোচনা ও মূল্যায়নের ভিত্তিতে সে সিদ্ধান্ত পুনর্বিবেচনার আশ্বাস কাউন্সিলের পক্ষ থেকে দেয়া হয়। প্রায় এক বছর সময়ে টাওয়ার হ্যামলেটস কাউন্সিল ল্যাঙ্গুয়েজ সার্ভিস নিয়ে কাদের সাথে মতবিনিময় করেছে এবং কি তাদের ফাইণ্ডিংস তা আমাদের জানা নেই। আমরা শুধু এটাই জেনেছি যে গত ডিসেম্বরে (২০১৯) কাউন্সিলের সভায় কমিউনিটি ল্যাঙ্গুয়েজ সার্ভিস বন্ধ করে দেয়ার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।

বিলাতে দু ভাবে বাংলাভাষা শিক্ষার ব্যবস্থা থেকে চালু আছে। বাঙালি অধ্যুষিত এলাকার সেকে-ারী স্কুলে বিদেশী ভাষা হিসেবে জিসিএসই পর্যন্ত বাংলাভাষা শিক্ষা দেয়ার ব্যবস্থা রয়েছে। দ্বিতীয়তঃ কাউন্সিল পরিচালিত কমিউনিটি ল্যাঙ্গুয়েজ সার্ভিসের অধীনে ছাত্ররা মাতৃভাষা হিসেবে বাংলাভাষা শিখে। বর্তমানে অনেক স্কুল বিভিন্ন অজুহাতে কারিকুলামের বিষয় হিসেবে বাংলাশিক্ষা কার্যক্রম সীমিত করে ফেলেছে। ল্যাঙ্গুয়েজ সার্ভিস বন্ধ হয়ে গেলে সরকারী ব্যবস্থাপনায় বাংলাভাষা শিক্ষার আর কোনো সুযোগ থাকবে না।
কয়েক দশক থেকে চালু ল্যাঙ্গুয়েজ সার্ভিসে কোনো কোনো বছরের বরাদ্দ ছিল মিলিয়ন পাউ-ের বেশি। যখন এটা চালু হয় তখন টাওয়ার হ্যামলেটস কাউন্সিলে হাতেগোনা কয়েকজন বাঙালি কাউন্সিলর ছিলেন। বর্তমানে টাওয়ার হ্যমলেটস কাউন্সিলে মোট ৪৫ জন কাউন্সিলর আছেন। এর মধ্যে লেবার পার্টির ৪১ জন কাউন্সিলর এবং তাদের মধ্যে ২২ জনই বাঙালি। সুরমায় প্রকাশিত রিপোর্ট অনুসারে ল্যাঙ্গুয়েজ সার্ভিসের বাজেট কর্তন হলে ১শ জন শিক্ষক চাকরি হারাবেন, শিক্ষা থেকে বঞ্চিত হবে ২ হাজার ছাত্রছাত্রী এবং বন্ধ হয়ে যাবে ৪৭টি সেন্টার। এর পরও কোন যুক্তিতে এবং কীভাবে ল্যাঙ্গুয়েজ সার্ভিসে অর্থ বরাদ্দ বন্ধ করে দেয়ার সিদ্ধান্ত হয় তা আমাদের বোধগম্য নয়।
ল্যাঙ্গুয়েজ সার্ভিস চালু রাখার দাবিতে গত বছর ১৮ জানুয়ারী (২০১৯) সুরমা নিউজগ্রুপ কর্তৃক এক গোল টেবিল বৈঠকের আয়োজন করা হয়। সেখানে অন্যান্যদের মধ্যে টাওয়ার হ্যামলেটসের নির্বাহী মেয়র জন বিগস এবং পপলার ও লাইম হাউস এলাকার নব-নির্বাচিত এমপি আপসানা বেগম উপস্থিত ছিলেন। সে বৈঠকে নির্বাহী মেয়র জন বিগস স্পষ্ট করে বলেছেন, তিনি ডিক্টেটর নন এবং তিনি কাউন্সিলরদের সাথে পরামর্শের ভিত্তিতে সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেন। এর অর্থ কারো কাছে অস্পষ্ট নয়। স্থানীয় অধিবাসীরা যাদের ভোট দিয়ে নির্বাচিত করেছেন তাদের সাথে পরামর্শ করেই নির্বাহী মেয়র ল্যাঙ্গুয়েজ সার্ভিস বন্ধ করে দেয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন।
এমতাবস্থায় বাঙালি ভোটারদের ঠিক করতে হবে তারা ল্যাঙ্গুয়েজ সার্ভিস চালু রাখতে কতটুকু আগ্রহী। নির্বাচিত কাউন্সিলরগণ ভোটারদের স্বার্থ এবং আগ্রহকে গুরুত্ব না দিলে ভোটারদের দায়িত্ব হচ্ছে নিজেদের কর্তব্য ঠিক করে দেয়া।

সম্পরকিত প্রবন্ধ

Back to top button
Close
Close