রোমানিয়ায় কিশোরী খুনের দায়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর পদত্যাগ, পুলিশপ্রধান এবং শিক্ষামন্ত্রী বরখাস্ত

আন্তর্জাতিক

লণ্ডন ১৫ আগষ্ট: এক কিশোরী অপহরণ করে হত্যার ঘটনায় জনতার ক্ষোভের মুখে দেশটির স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী পদত্যাগ করেছেন। আর পুলিশপ্রধান ও শিক্ষামন্ত্রীকে বরখাস্ত করেছেন দেশটির প্রধানমন্ত্রী ভিওরিকা দানচিলা।  

কিশোরী আলেকজান্দ্রা মাসেসানুকে (১৫) গত ১৪ জুলাই অপহরণের পর হত্যা করা হয়। দেশটির জরুরি সেবায় তিনবার ফোন করেও যথাযথ সহায়তা পায়নি মাসেসানু। তাকে হত্যার ঘটনা জানাজানি হলে দেশটিতে বিক্ষোভ শুরু হয়। প্রধান মন্ত্রী প্রথমে বরখাস্ত করেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ও পুলিশ প্রধানকে। পরে শিক্ষামন্ত্রীর এক মন্তব্যের জের ধরে তাকেও বরখাস্ত করা হয়। সূত্র বিবিসি।

বিবিসির প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, গত সপ্তাহে এক টেলিভিশন অনুষ্ঠানে গিয়ে শিক্ষামন্ত্রী ইকেতেরিনা আন্দ্রোনেস্কুও বলেছিলেন, ‘অপরিচিত ব্যক্তির গাড়িতে উঠতে নেই’- নিহত কিশোরী মাসেসানুকে এই শিক্ষা যথাযথভাবে দেওয়া হয়নি। তাঁর এই মন্তব্যকে একদমই ভালোভাবে নেননি দেশটির প্রধানমন্ত্রী ভিওরিকা দানচিলা। অপহরণ ও খুনের পর শিক্ষামন্ত্রীর এমন মন্তব্যকে ‘বড় ভুল’ হিসেবে আখ্যা দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী দানচিলা। তিনি আরো বলেছেন, শিক্ষামন্ত্রী আন্দ্রোনেস্কু ঘটনার ভয়াবহতা বুঝতে ব্যর্থ হয়েছেন।

আন্দ্রোনেস্কু আত্মপক্ষ সমর্থন করে বলেছেন, নিহত কিশোরী বা তার পরিবারকে দোষারোপ করে তিনি কোনো মন্তব্য করেননি। এর আগে এই ঘটনায় বিক্ষোভের মুখে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী নিকোলাই মোগা পদত্যাগ করেন, আর পুলিশপ্রধান আয়ন বুদাকে বরখাস্ত করা হয়।

ইউরোপের দক্ষিণ-পূর্বাঞ্চলীয় এই দেশটির পুলিশ বলছে, দক্ষিণাঞ্চলীয় শহর দোবরোসলোভেনি থেকে গত ১৪ জুলাই বাড়ি ফেরার পথে অপরিচিত এক ব্যক্তির গাড়িতে উঠে অপহরণের শিকার হয় কিশোরী মাসেসানু। পরদিন অপহরণকারীদের জিম্মায় থেকেই পুলিশের জরুরি হটলাইনে তিনবার ফোন করে সে। পুলিশকে পুরো ঘটনা জানালেও কিশোরীটিকে উদ্ধার করতে পারেনি রোমানিয়ার পুলিশ। এ ঘটনায় পুলিশের ব্যর্থতার প্রতিবাদে ফুঁসে ওঠে গোটা রোমানিয়া।

এ ঘটনায় সন্দেহভাজন হিসেবে ৬৫ বছর বয়সী গিওর্গি দিনকাকে আটক করেছে পুলিশ। দিনকার বাড়ি থেকে কিশোরী মাসেসানুর ডিএনএ পাওয়া গেছে বলেও দাবি করেছেন তদন্তকারী কর্মকর্তারা। দিনকা প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে খুনের ঘটনা স্বীকার করে নিয়েছেন বলেও জানিয়েছে পুলিশ। এর আগে ১৮ বছর বয়সী আরেক কিশোরী লুইজা মেলেনকুকে হত্যার কথাও জিজ্ঞাসাবাদে স্বীকার করেছেন তিনি। দিনকার আইনজীবী আলেকজান্দ্রু বোগদান রোমানিয়ার জাতীয় সংবাদ সংস্থাকে বলেছেন, দিনকা তাঁর দোষ স্বীকার করে নিয়েছেন।